কবিতা ৪১ – ‘যেজন দিবসে’ ও অন্যান্য – কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদারের কিছু কবিতা / Poem 41 – ‘Jejon Dibashe’, And More – Some Poems by Krishnachandra Majumdar

আজকের লেখাটি একটি নয়, বরং বেশ কটি কবিতা নিয়ে। বাংলা সাহিত্য নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করলেও তা নিয়ে নিজে যে কত অল্প জানি, তা প্রায়ই ভুলে যাই। এতদিন আমার মনে ধারণা ছিল যে নিম্নোক্ত কবিতাগুলো হয়তো রবিঠাকুরের লেখা, কিন্তু ইন্টারনেটের কল্যাণে আসলে সেগুলো যে উনবিংশ শতাব্দীর বাঙ্গালী কবি কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার লিখেছেন, তা আজ জানলাম। কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদারের সুন্দর অথচ সরল ভাষায় লেখা কবিতাগুলোর মধ্যে অনেক কটিরই পংক্তি আজ বাংলায় প্রবাদবাক্যে পরিণত হয়েছে। আর তা মনে রেখেই আজ সেরকম তিনটি কবিতা তুলে দিলাম। আশা করি পাঠকদের ভাল লাগবে।

This post features a microcollection of poems written by the 19th Century Bangla poet Krishnachandra Majumdar. Not many of us know about the poet himself, but quite a few of his lines have made their way into the Bangalee colloquialism as proverbs and sayings – a testament to his skill with the pen. Three of his more notable works are presented here for the enjoyment of the reader. More works by Majumdar can be found here.

বুঝিবে সে কিসে

Krishnachandra Majumdar-Bujhibe Se Kishe

চিরসুখীজন ভ্রমে কি কখন
ব্যথিতবেদন বুঝিতে পারে।
কী যাতনা বিষে, বুঝিবে সে কিসে
কভূ আশীবিষে দংশেনি যারে।

যতদিন ভবে, না হবে না হবে,
তোমার অবস্থা আমার সম।
ঈষৎ হাসিবে, শুনে না শুনিবে
বুঝে না বুঝিবে, যাতনা মম।

অপব্যয়ের ফল

Krishnachandra Majumdar-Apobyayer Fal (2)

যে জন দিবসে মনের হরষে
জ্বালায় মোমের বাতি,
আশু গৃহে তার দখিবে না আর
নিশীথে প্রদীপ ভাতি।

He who, in his whim,
lights his candles in the day,
finds his home dark in the night.

দুখের তুলনা

একদা ছিল না ‘জুতো’ চরণ-যুগলে
দহিল হৃদয় মম সেই ক্ষোভানলে।
ধীরে ধীরে চুপি চুপি দুঃখাকুল মনে,
গেলাম ভজনালয়ে ভজন কারণে !
দেখি তথা এক জন, পদ নাহি তার,
অমনি ‘জুতো’র খেদ ঘুচিল আমার,
পরের অভাব মনে করিলে চিন্তন
নিজের অভাব ক্ষোভ রহে কতক্ষণ ?

– কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার

Advertisements