কবিতা ৬৫ – বঙ্গমাতা / Poem 65 – Bangomata (Mother Bengal)

rabindranath-thakur-bangomata

আজ যে কবিতাটি তোলা, তার শেষের দুটি পংক্তি আমাদের অনেকেরই মুখে মুখে ফেরে। বাঙ্গালী হিসেবে আমরা খানিকটা অসূয়াপূর্ণ, অর্থাৎ পৃথিবীকে বাঁকা চোখে দেখতে আর নিজেদের নিয়ে ঠাট্টা করতে অভ্যস্ত, তাই সেটি অস্বাভাবিক নয়, কিন্তু বঙ্গমাতা কবিতাটি রবীন্দ্রনাথ সেই দৃষ্টিকোণ থেকে নয়, বরং সমাজের অবক্ষয়ের মুখে বাঙ্গালীদের নিষ্ক্রিয় দুর্বলতা হতে উত্তরণের পথনির্দেশনা দিতেই লিখেছিলেন। বিগত কদিন ধরে সংবাদ পরে মনটা বেশ ভারাক্রান্ত হয়ে আছে, কবিতার মাঝে তাই খানিকটা আলোর দিশা খুঁজছিলাম। ভাবতে ভাবতে মনে পড়ল, তাই তুলে দেওয়া।

Today, a poem whose last two lines are the favorite lament of every cynical Bangalee – but that is not the reason why I post this. Bangomata (Mother Bengal) was written by Rabindranath Thakur not as a lament or a jibe at the state of our society, but rather, to point towards a salvation from this quagmire in which we Bangalees find ourselves so hoplessly stuck. In a time when it is easy for us to succumb to inaction and domestic bliss even as out soceity descends into darkness, this poem reminds us of what we must instead be – strong and resilient in the face of pain and danger – to lift ourselves out of our current state of being.

বঙ্গমাতা

পূণ্যে পাপে দুঃখে সুখে পতনে উত্থানে
মানুষ হইতে দাও তোমার সন্তানে
হে স্নেহার্ত বঙ্গভূমি, তব গৃহক্রোড়ে
চিরশিশু করে আর রাখিয়ো না ধরে।
দেশদেশান্তর-মাঝে যার যেথা স্থান
খুঁজিয়া লইতে দাও করিয়া সন্ধান।
পদে পদে ছোটো ছোটো নিষেধের ডোরে
বেঁধে বেঁধে রাখিয়ো না ভালোছেলে করে।
প্রাণ দিয়ে, দুঃখ স’য়ে, আপনার হাতে
সংগ্রাম করিতে দাও ভালোমন্দ-সাথে।
শীর্ণ শান্ত সাধু তব পুত্রদের ধরে
দাও সবে গৃহছাড়া লক্ষ্মীছাড়া ক’রে।
সাত কোটি সন্তানেরে, হে মুগ্ধ জননী,
রেখেছ বাঙালী করে, মানুষ কর নি।

– রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (চৈতালি  হতে সংগ্রহীত)

Advertisements

কবিতা ৬৩ – স্বপ্ন / Poem 63 – Swapna (The Dream)

rabindranath-thakur-swapna-1

আজ পাঠকদের ফেলে আসা রাত্রিগুলোকে মনে করিয়ে দেওয়ার মত একটি কবিতা – রবিঠাকুরের কলমে – দূরত্ব, ভালবাসা, আর তা হতে জন্ম নেওয়া স্বপ্নগুলোকে নিয়ে।

Today, a poem that will perhaps stir memories of nights past – written by the Rabindranath Thakur, Swapna (The Dream) is an achingly beautiful poem about dreams that are born out of love and separation.

স্বপ্ন

কাল রাতে দেখিনু স্বপন–
দেবতা-আশিস-সম     শিয়রে সে বসি মম
মুখে রাখি করুণনয়ন
কোমল অঙ্গুলি শিরে     বুলাইছে ধীরে ধীরে
সুধামাখা প্রিয়-পরশন–
কাল রাতে হেরিনু স্বপন।
হেরি সেই মুখপানে     বেদনা ভরিল প্রাণে
দুই চক্ষু জলে ছলছলি–
বুকভরা অভিমান     আলোড়িয়া মর্মস্থান
কণ্ঠে যেন উঠিল উছলি।
সে শুধু আকুল চোখে     নীরবে গভীর শোকে
শুধাইল, “কী হয়েছে তোর?”
কী বলিতে গিয়ে প্রাণ     ফেটে হল শতখান,
তখনি ভাঙিল ঘুমঘোর।
অন্ধকার নিশীথিনী     ঘুমাইছে একাকিনী,
অরণ্যে উঠিছে ঝিল্লিস্বর,
বাতায়নে ধ্রুবতারা     চেয়ে আছে নিদ্রাহারা–
নতনেত্রে গণিছে প্রহর।
দীপ-নির্বাপিত ঘরে     শুয়ে শূন্য শয্যা-‘পরে
ভাবিতে লাগিনু কতক্ষণ–
শিথানে মাথাটি থুয়ে     সেও একা শুয়ে শুয়ে
কী জানি কী হেরিছে স্বপন
দ্বিপ্রহরা যামিনী যখন।

– রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (চৈতালি হতে সংগ্রহীত)

Swapna (The Dream)
(Translated by the poet himself)

I dreamt that she sat by my head,
tenderly ruffling my hair with her fingers,
playing the melody of her touch.
I looked at her face and struggled with my tears,
till the agony of unspoken words burst my sleep like a bubble.

I sat up and saw the glow of the milky way
above my window, like a world of silence on fire,
and I wondered if at this moment
she had a dream that rhymed with mine.

– Rabindranath Thakur (Collected from Chaitali)