ছোটগল্প ১১২ – প্রফেসর শঙ্কু – প্রফেসর শঙ্কু ও আশ্চর্য পুতুল / Short Story 112 – Professor Shanku – Professor Shanku O Ashchorjo Putul (Professor Shanku and the Uncanny Dolls)

satyajit-ray-professor-shanku-professor-shanku-o-ashchorjo-putul

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Professor Shanku O Ashchorjo Putul

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – প্রফেসর শঙ্কু ও আশ্চর্য পুতুল – সত্যজিৎ রায়

আজ প্রফেসর শঙ্কুর আরেকটি গল্প। সুইডিশ অ্যাকাডেমী অফ সায়েন্সেস হতে সম্মানসূচক উপাধি নিতে সেখানে গিয়ে গ্রেগর লিন্ডকুইস্ট নামের এক ভদ্রলোকদের সাথে শঙ্কুর পরিচয় হয়। লিন্ডকুইস্ট জানান যে তিনি একজন শিল্পী যার বিশেষত্ব বিখ্যাত লোকদের ক্ষুদ্রাকার কিন্তু অবিকল প্রতিমূর্তি তৈরী করা, আর শঙ্কুর একটি প্রতিমূর্তি তৈরী করার প্রস্তাব দিয়ে নিজের বাড়িতে আপ্যায়ন গ্রহণের জন্যে শঙ্কুকে তিনি অনুরোধ জানান। শঙ্কু বেশ আনন্দের সাথেই সম্মত হন, যদিও তাঁর জানতে বাকি ছিল যে লিন্ডকুইস্ট এর মূর্তি বানানো শুধু শিল্প নয়, গুরুতর বিজ্ঞানও বটে।

Professor Shanku’s Stories – Professor Shanku O Ashchorjo Putul (Professor Shanku and the Uncanny Dolls) – Satyajit Ray

Today, another Shanku adventure for the readers: While visiting Sweden to accept an honorary doctorate from the Swedish Academy of Sciences, Professor Shanku meets an artist by the name of Gregor Lindquist. Mr. Lindquist explains to him that he specialises in creating amazingly lifelike statuettes of famous figures, and requests the Professor to visit his house for a few days and grant him a few sittings. Neutral to the idea of a statuette being made in his image, Shanku consents, but he is yet to know that Lindquist the artist is every bit the scientist that the professor does not expect him to be.

ছোটগল্প ১১০ – প্রফেসর শঙ্কু ও ম্যাকাও / Short Story 110 – Professor Shanku – Professor Shanku O Macaw

satyajit-ray-professor-shanku-professor-shanku-o-macawপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray – Professor Shanku – Professor Shanku O Macaw

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – প্রফেসর শঙ্কু ও ম্যাকাও – সত্যজিৎ রায়

সত্যজিৎ রায়ের লেখা প্রফেসর শঙ্কুর সব গল্পগুলোই যে আমাকে টানে, তা নয় – শঙ্কুর কিছু গল্প বর্তমান যুগের বিজ্ঞান থেকে এতটাই দূরে যে সেগুলোকে মেনে নেওয়া নিজের মধ্যেকার কাল্পনিক বৈজ্ঞানিকটির পক্ষে বেশ কঠিনই হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু এই সাইটে গল্প তোলা তো আর আমার জন্যে নয়, তাছাড়া আমি নিজেই বা বিজ্ঞানের কতটুকু জানি বা বুঝি? তাই আজ সেটিকে মেনে নিয়ে শঙ্কুর আরেকটি গল্প, যা আমার মতে অল্প একটু ‘বৈজ্ঞানিক’ আর তার চাইতে অনেক বেশি ‘কল্পকাহিনী’ – প্রফেসর শঙ্কু ও ম্যাকাও গল্পটি আমাদের চিরচেনা শঙ্কু, তাঁর এক প্রতিদ্বন্দী, এবং একটি আশ্চর্য বুদ্ধিমান ম্যাকাওয়ের মধ্যেকার ত্রিমুখী ‘বিনিময়’ নিয়ে লেখা।

Professor Shanku’s Stories – Professor Shanku O Macaw – Satyajit Ray

Another Shanku upload after a long break – and this time, as a true departure from the norm, a story that I don’t like. To me, Professor Shanku O Macaw is too fantastical to be classified as science fiction, but then again, what do I know? And in any case, this site should have all sorts of Bangla works rather than just the ones which I prefer. Hence this story, which is centered on an exceptionally gifted bird.

 

ছোটগল্প ১০৬ – প্রফেসর শঙ্কু ও গোলক রহস্য / Short Story 106 – Profesor Shanku – Professor Shanku O Golak Rahasya (Professor Shanku and the Mysterious Sphere)

Satyajit Ray-Professor Shanku O Golak Rahasyaপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku O Golak Rahasya

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – প্রফেসর শঙ্কু ও গোলক রহস্য – সত্যজিৎ রায়

“গিরিডিতে বেড়াবার কথা বললে উশ্রীর ধারটাই মনে হয়, কিন্তু অবিনাশবাবু দেখই চলেছেন উলটো দিকে অর্থাৎ তাঁর বাড়ির দিকে। ব্যাপার কী? কী মতলব ভদ্রলোকের?

কিছুদূর যাবার পরে অবিনাশবাবু নিজেই কারণটা বললেন – “আজ একটা খেলনা পেয়েছি। সেটা আপনাকে দেখাব।”

“খেলনা?”

“চলুন না। দেখলে আপনারও লোভ লাগবে – কিন্তু আপনাকে দেব না সেটি।”

মনে মনে বললাম – “খেলনার বয়স হয়তো আপনার থাকতে পারে – কিন্তু আমার কি আর আছে?””

আজ প্রফেসর শঙ্কুর একটি গল্প, আর পাঠকদের কৌতুহল জাগানোর জন্যে একটি ভাবনা – গোলক তো নানা মাপের হতে পারে, ক্রিকেট বলের মত ছোট… কিংবা পৃথিবীর মত বড়… কিন্তু তাদের মিল কি শুধু আকৃতিতেই? নাকি এমন কোনও মিল তাদের মধ্যে থাকতে পারে, যা আমাদের কল্পনার বাইরে?

Professor Shanku’s Stories – Professor Shanku O Golak Rahasya – Satyajit Ray

From the cricket balls we play with to the giant planets orbiting the stars, big and little spheres are what the universe is made of. But is it only their shape where their similarity ends? In this story, Professor Shanku comes across a strage sphere that vaguely reminds him of something he feels he has seen before, and when he figures out what it is, he suddenly finds himself playing God with the mysterious little sphere… and the one that we live on.

ছোটগল্প ১০৪ – প্রফেসর শঙ্কু- শঙ্কুর পরলোকচর্চা / Short Story 104 – Professor Shanku – Shankur Parolok Charcha (Souls)

Satyajit Ray-Professor Shanku-Shankur Parolokcharcha

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Shankur Parolokcharcha

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – প্রফেসর শঙ্কু ও ভূত – সত্যজিৎ রায়

সত্যজিৎ রায়ের লেখায় তাঁর বিজ্ঞানমনস্কতা ও আধুনিকতা বরাবরই ফুটে উঠলেও ভৌতিকতা বা অতিপ্রাকৃতের প্রতি যে তার বেশ ঝোঁক ছিল, সেটা তার অনেক লেখা থেকেই বোঝা যায়। প্রফেসর শঙ্কুর এই গল্পটি তেমনই এক লেখা – যাতে ভূত নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে শঙ্কু আর তাঁর সহকর্মীরা ভূতের সাথে যোগাযোগ করার জন্যে ‘কম্পিউডিয়াম’ (অর্থাৎ কম্পিউটারাইজ্‌ড মিডিয়াম) নামক এক যন্ত্রের আবিষ্কার করেন। স্বাভাবিকভাবেই আবিষ্কারটির খবর চারিদিকে সাড়া ফেলে দেয়, কিন্তু তার ফলে সম্মানের চাইতে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপই শঙ্কুদের দিকে ধেয়ে আসে বেশি। বিজ্ঞানীরা অবশ্য তাতে অবিচলিতই থাকেন, আর পরলোকগতদের সাথে তাদের আলাপচারিতার ফলে ক্রমশ অনেকই অজানা তাদের জ্ঞানের পরিধির মধ্যে চলে আসে।

Professor Shanku’s Stories – Shankur Parolok Charcha (Souls) – Satyajit Ray

While Satyajit Ray’s stories are usually based on the traditional scienctific thought, many of his writings also hint at his deep fascination with the unexplained and the paranormal. In Shankur Parolokcharcha (Souls) we find that evident – in the course of their research on beings of the Afterworld, Shanku and his colleagues invent the ‘Compudium’, a ‘computerised medium’ to communicate with those who have died. When the news about the invention breaks, they are expectedly ridiculed by many, but it is what the dead have to tell which interests the scientists more.

ছোটগল্প ১০১ – প্রফেসর শঙ্কু – প্রফেসর শঙ্কু ও হাড় / Short Story 91 – Professor Shanku – Professor Shanku O Har (Bones)

Satyajit Ray-Professor Shanku O Harপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku O Har

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – প্রফেসর শঙ্কু ও হাড় – সত্যজিৎ রায়

প্রফেসর শঙ্কু ও হাড় সত্যজিতের লেখা শঙ্কুর প্রথম গল্পগুলোর একটি। আর সেসব গল্পগুলোর মত এটিতেও আমরা শঙ্কুকে ধী-স্থির ঋষিতুল্য বিজ্ঞানীর বদলে বেপরোয়া একজন হিসেবেই দেখতে পাই। তবে এই গল্পটা সেদিকটা বাদেও প্রফেসরের অন্য গল্পগুলোর চাইতে একটু আলাদা, কারণ এতে শঙ্কু বৈজ্ঞানিক অনুসন্ধিৎসার বশে যা করেন, তা তাকে আমাদের চিরচেনা নীতিবান এক মানুষের বদলে একজন আত্মসাৎকারীর পর্যায়েই ফেলে দেয়।

Professor Shanku’s Stories – Professor Shanku O Har (Bones) – Satyajit Ray

Professor Shanku O Har is one of the first stories of the scientist written by Satyajit Ray, and like others of its kind, it depicts Shanku as more of a reckless scientist than the almost sage-like person we come across his later depictions. This story is different, however, for another reason: in it, Shanku’s recklessness and curiosity leads him to appropriate someone else’s property – an act that results in severe consequences.

ছোটগল্প ৯১ – প্রফেসর শঙ্কু – স্বপ্নদ্বীপ / Short Story 91 – Professor Shanku – Swapnadwip (The Island of Dreams)

Satyajit Ray-Professor Shanku-Swapnadwip 1

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Swapnadwip

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – স্বপ্নদ্বীপ – সত্যজিৎ রায়

প্রফেসর শঙ্কুর গল্পগুলো বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী হওয়ার কারনেই খানিকটা অদ্ভুত, তবে সেগুলোর মধ্যেও যদি অদ্ভুততর কোন গল্পের নাম বলতে হয়, তখন স্বপ্নদ্বীপ এর কথা মনে আসে। স্বপ্নদ্বীপ এর শুরু হয় রোজ রাতে প্রফেসর শঙ্কুর একটি আশ্চর্য জায়গাকে স্বপ্নে দেখা নিয়ে। স্বপ্নটা নাহয় শঙ্কুর ভাষাতেই বর্ণনা করি –

দেখলাম আমি একটা অদ্ভুত জায়গায় গিয়ে পড়েছি। সেখানে ঘরবাড়ি লোকজন কিছুই নেই – আছে শুধু গাছপালা আর বনজঙ্গল। এইসব গাছপালার একটিও আমার চেনা নয়। এদের রংও ভারী অস্বাভাবিক। সবুজ পাতা প্রায় নেই বললেই চলে। তার বদলে নীল লাল বেগুনী কমলা এই ধরনের রং। গাছে ফুল আর ফলও আছে – তার একটাও আমার চেনা নয়। একটা প্রকান্ড  ফুলে অজস্র পাপড়ি আর প্রত্যেকটা পাপড়ির রং আলাদা। আর একটা ফুলের এক-একটা পাপড়ি যেন এক-একটা হাতির কান, আর হাতির কানের মতই সেগুলো মাঝে মাঝে দুলে দুলে উঠছে… আর একটা তরমুজের সাইজের ফল – তার সর্বাঙ্গে গাঁঢ় লাল রোঁয়া, আর সেই রোঁয়ার ভিতর দুটো করে গোল গোল সাদার মাঝখানে কালো ফুটকি। ঠিক যেন মনে হয়, ফলের গায়ে একজোড়া চোখ।

শঙ্কু তখন তার প্রতি-মাধ্যাকর্ষণ ধাতু দিয়ে একটি উড়োজাহাজ বানানোর কাজে ব্যস্ত। কিন্তু তার মধ্যেই প্রতি রাতে এই অদ্ভুত স্বপ্নটি দেখতে দেখতে কেন জানি শঙ্কুর বাইরে কোথাও ঘুরে আশার ইচ্ছে জাগে। একই সময় হঠাৎই পৃথিবীর নানা দেশের বেশ কয়েকজন বিশিষ্ট মনীষী রহস্যজনকভাবে একইসাথে নিখোঁজ হয়ে যান। ঘটনাটি শঙ্কুর মনে খটকা জাগালেও উড়োজাহাজ তৈরী আর রাত্রে একই স্বপ্ন বার বার দেখা ছাড়া অন্য কিছু নিয়ে চিন্তা করার সময় তার ছিল না। যাই হোক উড়োজাহাজও তৈরী হয়, আর শঙ্কুও তাতে তার প্রতিবেশী অবিনাশবাবুকে নিয়ে উড়াল দেন। তাদের গন্তব্য – অক্ষাংশ ১৬ উত্তর, দ্রাঘিমাংশ ১৩৬ পূর্ব – আর তাতে যাওয়ার কারণ – অজানা, হয়তো স্বপ্নে দেখা বলে।

Professor Shanku’s Stories – Swapnadwip (The Island of Dreams) – Satyajit Ray

Of the adventures of Professor Shanku, Swapnadwip (The Island of Dreams) ranks among the most bizarre. The story starts with Shanku in the thick of building his own airplane – a task that keeps him absorbed even when several prominent people from across the world mysteriously go missing. But busy though he is, Shanku’s sleep is strangely broken by the same dream every night – one about an island with enticingly colourful plants and strangely alive flowers. And despite his work, Shanku finds himself brooding more and more on his nightly visions, which inexplicably fill him with a desire to go off to some faraway land. As if on cue, the airplane gets built, and Shanku sets off on it with his neighbor, Abinash Babu towards the Bay of Bengal. Their destination – a stretch of water at Latitude 16 N and Longitude 136 E, and reason for going there – a desire to go that Shanku himself cannot explain.

Satyajit Ray-Professor Shanku-Swapnadwip 2

ছোটগল্প ৮৪ – প্রফেসর শঙ্কু ও ঈজিপ্সীয় আতঙ্ক / Short Story 84 – Professor Shanku – Professor Shanku O Egyptio Atanko (Professor Shanku and the Egyptian Horror)

Satyajit Ray-Professor Shanku O Egytio Atankoপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku O Egyptio Atanko

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – প্রফেসর শঙ্কু ও ঈজিপ্সীয় আতঙ্ক – সত্যজিৎ রায়

ব্যোমযাত্রীর ডায়রির পর শঙ্কুর সাথে আমাদের দ্বিতীয়বারের মত দেখা হয় এই গল্পটিতে, যদিও গল্পের ধারাবাহিকতা কিনা শঙ্কুর জীবনের সাথে মেলে কিনা তা বলা মুশকিল। ঈজিপ্সীয় আতঙ্কের শুরু স্বাভাবিকভাবেই মিশরে, যার প্রাচীন বিজ্ঞান ও প্রত্নতত্ব সম্পর্কে জানার জন্য শঙ্কু সেখানে যান। শঙ্কুর সাথে সেখানে জেমস সামারটন নামের একজন প্রত্নতত্ত্ববিদের সাথে পরিচয় ও বন্ধুত্ব হয়, যার ফলস্বরূপ ভারতে ফেরার সময় একটি দুর্লভ মমি গবেষণার জন্য শঙ্কু সাথে করে নিয়ে আসতে সক্ষম হন। কিন্তু মমির সাথে সাথে একটি অশুভ ছায়াও শঙ্কুর সঙ্গী হয়, যদিও শঙ্কুর কাছে সেটা প্রতীয়মান হয়ে ওঠে অনেক দেরিতে।

ব্যোমযাত্রীর ডায়রির খ্যাপাটে বিজ্ঞানীর জায়গায় ঈজিপ্সীয় আতঙ্কে শঙ্কুকে আমরা পাই আমাদের চিরচেনা শঙ্কু হিসেবে। সত্যজিৎ কি ভেবে এই পরিবর্তনটি করেছিলেন জানতে কৌতুহল জাগে।

Professor Shanku’s Stories – Professor Shanku O Egyptio Atanko (Professor Shanku and the Egyptian Horror) – Satyajit Ray

The Egyptian Horror is the second story Satyajit Ray wrote about Professor Shanku, although whether the stories are chronological with respect to his life remains unclear. As is to be expected from the title, the story starts in Egypt, where Shanku goes to learn more about its ancient science and archaeology. There, Shanku befriends an archaeologist named James Somerton, and as a consequence, succeeds in procuring an Egyptian mummy for his own research. Shanku brings the mummy to his home in Giridi, little knowing its history, and a mysterious entity that follows it to his hometown.

ছোটগল্প ৮২ – প্রফেসর শঙ্কু – ব্যোমযাত্রীর ডায়রি / Short Story 82 – Professor Shanku – Byomjatrir Diary (The Diary of the Space Traveler)

Satyajit Ray-Professor Shanku-Byomjatrir Diary পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Byomjatrir Diary

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – ব্যোমযাত্রীর ডাইরি – সত্যজিৎ রায়

এবারের আপলোডটি প্রফেসর শঙ্কুকে নিয়ে লেখা সত্যজিৎ রায়ের প্রথম গল্প। শঙ্কুর অন্যান্য গল্পগুলোর মতো এটিও দারুণ, তবে এটির লেখার ধরণ কিন্তু আলাদা। যেখানে অন্য সব গল্পে শঙ্কু ঋষিসুলভ ধৈর্য আর সংযমের অধিকারী, এই গল্পে শঙ্কু সোজা কথায় খানিকটা পাগলাটে একজন বিজ্ঞানী। ফেলুদার মতো শঙ্কুরও পরিণত হয়ে ওঠা ঘটে সত্যজিতের পরের গল্পগুলোতে, খুব সম্ভবত এই কারণে যে লেখক হয়তো প্রথম দিকে চরিত্রগুলোকে শিশুদের কথা ভেবেই কল্পনা করেছিলেন।

ব্যোমযাত্রীর ডাইরি – প্রফেসর শঙ্কুর প্রথম (অন্যভাবে চিন্তা করলে হয়তোবা শেষ) গল্প।

Satyajit Ray-Professor Shanku-Byomjatrir Diary 2

Professor Shanku’s Stories – Byomjatrir Diary (The Diary of the Space Traveler) – Satyajit Ray

This upload is the first story that Satyajit Ray wrote on Professor Shanku. Like Feluda in his first adventure, Shanku too appears as a very different person – a somewhat mad scientist rather than the sage-like figure that he develops into Ray’s later writings. One possible reason for this could be that Ray might have initially written both characters keeping children in mind. Regardless, this one is particularly for those who love mad-scientists – Shanku’s first (and perhaps last) adventure.

Satyajit Ray-Professor Shanku-Byomjatrir Diary 3

ছোটগল্প ৭২ – প্রফেসর শঙ্কু – আশ্চর্জন্তু / Short Story 72 – Professor Shanku – Ashcharjantu (The Extraordinary Animal)

 Satyajit Ray-Professor Shanku-Ashcharjantu (1)

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Ashcharjantu

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – আশ্চর্যজন্তু – সত্যজিৎ রায়

প্রফেসর শঙ্কু গিরিডিতে কোন এক সময় থাকাকালে তাঁর চাকর প্রহ্লাদ হঠাৎ একদিন কোত্থেকে তাঁর সামনে এক আশ্চর্য প্রাণী এনে হাজির করে, যা শঙ্কুর জানামতে আনকোরা এক নতুন প্রজাতির নমুনা ব্যতিত কিছু নয়। জন্তুটি অদ্ভুতভাবে শঙ্কুর পোষও মেনে যায়, আর তার পরের দিনগুলো গড়ানোর সাথে সাথে শঙ্কু সেটিকে পর্যবেক্ষণ করে দেখেন যে আপাতদৃষ্টিতে প্রাণীটিকে একটি অদ্ভূত বানরের মত দেখতে হলেও সেটির মধ্যে লুকোনো কিছু বৈশিষ্ট্য আছে – যেমন সে সারা ঘর ঘুরে ঘুরে শঙ্কুর জিনিসপত্র নেড়ে চেড়ে দেখে, বোঝার চেষ্টা করে। শঙ্কুর প্রথমে শুধু প্রাণীটির বুদ্ধিমত্তা দেখেই তাক লেখে গেলেও অচিরেই সেটি এমন সব শারীরিক পরিবর্তন দেখাতে শুরু করে যে তিনি বিস্ময়ে হতবাক হয়ে যান। অবশ্য তখনো তার ধারণা ছিল না যে সামনে কি ঘটতে চলেছে।

Professor Shanku’s Stories – Ashcharja Jantu (The Extraordinary Animal) – Satyajit Ray

On one of his periods of stay in Giridi, Professor Shanku’s servant, Prahlad, brings a strange animal that he got from a friend in the village into the house. Shanku is surprised when he sees it, for the animal is unlike any that he has seen or heard of. Shanku decides to keep and study it, and soon finds out the creature to be more curious and intelligent than any other. However, if its intelligence surprises the professor, the changes in the animal which follow astounds him. In the end, Shanku gets an inkling of the animal’s special ability, but he does not know that there is still more to come.

Satyajit Ray-Professor Shanku-Ashcharjantu (2)

 

ছোটগল্প ৬৯ – প্রফেসর শঙ্কু ও ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন / Short Story 69 – Professor Shanku – Professor Shanku O Frankenstein

Satyajit Ray-Professor Shanku-Frankensteinপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Shanku O Frankenstein

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – শঙ্কু ও ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন – সত্যজিৎ রায়

আরেক ডোজ শঙ্কু, আর এবারে ভূমিকার বদলে গল্পের মাঝখানের দিকে শঙ্কুর লেখা একটা দিনলিপি। গল্পের নামটা পড়ে পাঠকের ধারণা অন্যরকম হতে পারে, তাই এটুকু বলি – এ গল্পের অনেকখানিই কিন্তু নাৎসিদেরকে ঘিরে।

১৭ জুন

আজ সন্ডার্সের আরেকটা চিঠি। অত্যন্ত জরুরি খবর। চিঠিটা এই –

প্রিয় শঙ্কু,

ডাঃ টমাস গিলেটের নাম শুনেছ নিশ্চয়ই। অত বড় ক্যান্সারবিশেষজ্ঞ পৃথিবীর আর কেউ ছিল না। ছিল না বলছি এই কারণে যে, আজ সকার সাতটায় হার্ট অ্যাটাকে গিলেটের মৃত্যু হয়েছে। সে ক্যান্সারের একটি অব্যর্থ ওষুধ তৈরি করতে চলেছিল। আমায় গত মাসেই বলেছিল, ‘আরেকটা মাস – তারপরে আর ক্যান্সারের ভয় থাকবে না।’ কিন্তু সেই ওষুধ তৈরি করার আগেই সে চলে গেল। আর চেয়ে বড় দুর্ঘটনা আর হতে পারে না। আমি ক্রোলকেও লিখেছি। আমার ইচ্ছা – ইনগোলস্ট্যাটে গিয়ে জুলিয়ার ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইনকে বলে তার প্রপিতামহের ডায়রির সাহায্যে গিলেটকে আবার বাঁচিয়ে তোলা। তুমি কি মনে কর পত্রপাঠে জানাও। গিলেটের মৃতদেহ আমি কোল্ড স্টোরেজে রাখতে বলে দিয়েছি। এখানে ডাক্তারিমহলকে আমার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছি। তারা সকলেই রাজি আছে।

ইতি

জেরেমি সন্ডার্স

আমি সন্ডার্সকে ইনগোলস্ট্যাট যাচ্ছি বলে জানিয়ে দিয়েছি। পরশুই রওনা। এবারে নিজের খরচেই যেতে হবে। কিন্তু কাজটা সফল হলে খরচের দিকটা সম্পূর্ণ অগ্রাহ্য করা চলবে।

Professor Shanku’s Stories – Shanku O Frankenstein – Satyajit Ray

When it comes to Professor Shanku’s stories, overdose is just not a thing. So here is another of his adventures. You may know a thing or two about Frankenstein, but this story has a bit more than what you may have read or heard, for instance, neo-nazis, and the Professor himself.

ছোটগল্প ৬৮ – প্রফেসর শঙ্কু ও আদিম মানুষ / Short Story 68 – Professor Shanku O Adim Manush (Professor Shankur and the Homo afarensis)

Satyajit Ray-Professor Shanku O Adim Manush

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku O Adim Manush

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – শঙ্কু ও আদিম মানুষ – সত্যজিৎ রায়

শঙ্কুর এই গল্পের পূর্বকথা হাইনরিখ ক্লাইন নামের একজন বিখ্যাত নৃতত্ত্ববিদের অ্যামাজন অভিযান। অ্যামাজনে ভ্রমণকালে ক্লাইন এমন এক উপজাতির সন্ধান পান, যা তার মতে মানুষ ত্রিশ লক্ষ বছর আগে যে অবস্থায় ছিল, সে অবস্থায়ই থেকে গেছে। শুধু তাই নয়, ক্লাইন সে উপজাতির থেকে একজনকে ফাঁদে ধরে তাঁর সাথে জার্মানি নিয়ে আসেন। স্বভাবতই ক্লাইনের খ্যাতি বিশ্বজোড়া ছড়িয়ে পরে, আর তার কিছুদিন পরেই শঙ্কু ক্লাইনের কাছ থেকে সেই উপজাতীয় নমুনাটিকে দেখতে যাওয়ার আমন্ত্রণপত্র পান। শঙ্কু সে সময় ক্রমবিবর্তনের গতি বাড়ানোর একটি ঔষধ তৈরী করার চেষ্টা করছিলেন। তাই ক্লাইনের চিঠি পেয়ে শঙ্কু মানুষের আদি এবং ভবিষ্যৎ চেহারার দুটোই একসাথে দেখা পাওয়ার সম্ভাবনা দেখে ক্লাইনের কাছে ঘুরতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। অবশ্য শঙ্কু মনে তখনো এটা ছিলনা যে তার ওষুধের অন্য একটি প্রয়োগ থাকতে পারে।

Professor Shanku’s Stories – Shanku O Adim Manush (Shanku and Homo afarensis) – Satyajit Ray

This story of Professor Shanku starts when Heinrich Klein, a German anthropologist, comes across what he conjectures to be a population of Homo afarensis in the Amazon, and manages to capture a specimen and bring him to Germany. International fame soon follows, and he invites Shanku to come and observe the ape. At the time, Shanku had been working on a drug that accelerates evolution and tested it successfully. Foreseeing a rare opportunity of witnessing the early and advanced forms of humans side by side, he accepts the invitation, realizing little that his drug may have uses that he had not foreseen.

ছোটগল্প ৬৬ – প্রফেসর শঙ্কু – মানরো দ্বীপের রহস্য / Short Story 66 – Professor Shanku – Manrow Dwiper Rahasya (The Manrow Island Mystery)

Satyajit Ray-Professor Shanku-Manrow Dwiper Rahasya 1

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Manrow Dwiper Rahasya

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – মানরো দ্বীপের রহস্য – সত্যজিৎ রায়

আবার শঙ্কু, আর এর আগে তুলে দেওয়া গল্পটির বর্ণনার মত এবারো গল্প থেকে উদ্ধৃতি দিয়েই শুরু করছি –

এই দ্বীপে পৌছানোর আগে গত তিন সপ্তাহের ঘটনা সবই আমার ডায়রিতে বিক্ষিপ্তভাবে লেখা আছে। হাতে যখন সময় পেয়েছি তখন সেগুলোকেই একটু গুছিয়ে লিখে রাখছি।

আমি যে আবার এক অভিযানের দলে ভিড়ে পড়েছি, সেটা বোধহয় আর বলার দরকার নেই। এই দ্বীপের হয়তো একটা নাম থাকতে পারে, কারণ আজ থেকে তিনশো বছর আগে এখানে মানুষের পা পড়েছিল, কিন্তু সে নাম সভ্য জগতে পৌঁছায়নি। আমরা এটাকে আপাতত মানরো দ্বীপ বলেই বলছি।

আমরা দলে আছি সবশুদ্ধ পাঁচজন। তার মধ্যে একজন হল আমার পুরনো বন্ধু জেরেমি সন্ডার্স, যার উদ্যোগেই এই অভিযান। এই উদ্যোগের গোঁড়ার কথা বলতে গেলে বিল ক্যালেনবাখের পরিচয় দিতে হয়। ইনিও আমাদের দলেরই একজন। ক্যালিফোর্নিয়ার অধিবাসী, দীর্ঘকায় বেপরোয়া শক্তিমান পুরুষ, পেশা ছবি তোলা। বয়স পয়তাল্লিশ হতে চলল, কিন্তু চালচলন তার অর্ধেক বয়সের যুবার মতো। ক্যালেনবাখের সঙ্গে সন্ডার্সের পরিচয় বেশ কয়েক বছরের। গত ডিসেম্বরে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক পত্রিকার তরফ থেকে ক্যালেনবাখ গিয়েছিল উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকার কয়েকটি শহরে কিছু স্থানীয় উৎসবের ছবি তুলতে। মোরক্কোর আগাদির শহরে এসে এক আশ্চর্য ঘটনা ঘটে। আগাদির সমুদ্রতীরের শহর, সেখানে অনেক জেলের বাস। ক্যালেনবাখ জেলেপাড়ায় গিয়েছিল সেখানকার বাসিন্দাদের সঙ্গে আলাপ করে তাদের ছবি তুলতে। একটি জেলের বাড়িতে ঢুকে তার চোখ পড়ে মালিকের বছরতিনেকের একটি ছেলের উপর। ছেলেটি হাতে একটা ছিঁপিআটা বোতল নিয়ে খেলা করছে। বোতলের ভিতরে কাগজ দেখতে পেয়ে ক্যালেরবাখের কৌতুহল হয়। সে ছেলেটির হাত থেকে বোতল নিয়ে দেখে তার ছিপি সিল করে বন্ধ করা এবং ভিতরের কাগজটা হল ইংরেজীতে লেখা একটা চিঠি। হাতের লেখার ধাঁচ থেকে মনে হয় সে চিঠি বহুকালের পুরনো। ছেলেটির বাপকে জিজ্ঞেস করে ক্যালেনবাখ জানে যে ওই বোতল নাকি তার ঠাকুরদাদার আমল থেকে তাদের বাড়িতে আছে। জেলেরা জাতে মুসলমান, আরবি ভাষায় কথা বলে, তাই বোতল থেকে চিঠি বের করে পড়ার কোন প্রশ্ন ওঠেনি।

সেই চিঠি ক্যালেনবাখ বোতল থেকে বার করে পড়ে এবং পড়ার অল্পদিনের মধ্যেই তার কাজ সেরে চলে যায় লন্ডনে। সেখানে সন্ডার্সের সঙ্গে দেখা করে চিঠিটা তাকে দেখায়। পেনসিলে লেখা মাত্র কয়েক লাইনের চিঠি। সেটার বাংলা করলে এই দাঁড়ায় –

ল্যাটিচিউড ৩৩ ডিগ্রি ইস্ট – লঙ্গিচিউড ৩৩ ডিগ্রি নর্থ,

১৩ ডিসেম্বর ১৬২২

এই অজানা দ্বীপে আমরা এমন এক আশ্চর্য উদ্ভিদের সন্ধান পেয়েছি যার অমৃততুল্য গুণ মানুষের জীবনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে সক্ষম। এই সংবাদ প্রচারের জন্য ব্র্যান্ডনের নিষেধ সত্ত্বেও এ চিঠি আমি বোতলে ভরে সমুদ্রের জলে ভাসিয়ে দিচ্ছি। ব্ল্যাকহোল ব্র্যান্ডন এখন এই দ্বীপের অধীশ্বর। অতএব এই চিঠি পড়ে কোনও দল যদি এই উদ্ভিদ সংগ্রহের উদ্দেশ্যে এখানে আসে, তারা যেন ব্র্যান্ডনের সাথে মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত হয়ে আসে। আমি নিজে ব্র্যান্ডনের হাতের শিকার হতে চলেছি।

হেক্টর মানরো

Professor Shanku’s Adventures – Manrow Dwiper Rahasya (The Manrow Island Mystery) – Satyajit Ray

Professor Shanku again. This time, Shanku finds himself in an expedition to an island in which presumably no one had set foot for the last three centuries. The reason – a message in a bottle from a certain Dr. Hector Manrow, who was traveling in a ship that had been looted by Caribbean pirates in 1622. Apparently, the pirates and Manrow became stranded soon after that in an island. But what was interesting to the explorers was Manrow’s disclosure that the island had a certain fruit whose near-ambrosia like benefits could change human civilization forever.

Satyajit Ray-Professor Shanku-Manrow Dwiper Rahasya 2

ছোটগল্প ৬৫ – প্রফেসর শঙ্কু – মহাকাশের দূত / Short Story 65 – Professor Shanku – Mahakasher Dut (The Messenger from the Stars)

Satyajit Ray-Professor Shanku-Mahakasher Dutপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Mahakasher Dut

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – মহাকাশের দূত – সত্যজিৎ রায়

এবারের গল্পের অনেকটুকু সেটির নাম থেকেই বোঝা যায়, তাই এবার নাহয় গল্পের খানিকটা অংশই তুলে দেই –

“তোমরা ভেবে দেখেছ কি, যে এই পাঁচ হাজার বছরের হিসেবে ক্রমশ পিছিয়ে গেলে বেশ কয়েকটা আশ্চর্য তথ্য বেরিয়ে পড়ে? পাঁচ হাজার বছর আগে ঈজিপ্টের স্বর্ণযুগের শুরু সে তো দেখেইছি। আরও পাঁচ হাজার পিছোলে দেখছি মানুষ প্রথম কৃষিকার্য শুরু করেছে, নিজের চেষ্টায় ফসল উৎপাদন করছে। আরও পাঁচ হাজার পিছিয়ে গেলে দেখছি মানুষ প্রথম হাড় ও হাতির দাঁতের হাতিয়ার, বর্শার ফলক, মাছের বঁড়শি ইত্যাদি তৈরী করছে, আবার সেইসঙ্গে গুহার দেওয়ালে ছবি আঁকছে। ত্রিশ হাজার বছর আগে দেখছি মানুষের মস্তিস্কের আকৃতি বদলে গিয়ে আজকের মানুষের মতো হচ্ছে…। পৃথিবীর প্রাচীন ইতিহাসের অনেক অধ্যায় আজও আমাদের কাছে অস্পষ্ট, কিন্তু এই পাঁচের হিসেবে যেটুকু ধরা পড়ছে সেটা আশ্চর্য নয় কি?”

মানব ইতিহাসে বড় বড় অগ্রগতিগুলোর সাথে সমপাতিক একটি ছোট্ট মহাজাগতিক পুনরাবৃত্তির গল্প মহাকাশের দূত , এবং প্রফেসর শঙ্কুর সবচেয়ে ভাবনা-উদ্রেককারী গল্পগুলির মধ্যে একটি।

Professor Shanku’s Stories – Mahakasher Dut (The Messenger from the Stars) – Satyajit Ray

Another of Professor Shanku’s adventures. Mahakasher Dut (The Messenger from Space) is the story of an extraterrestrial event that apparently repeats in synchrony with major events in human history, with the coming occurrence predicted to be in Prof. Shanku’s timeline. This story is undoubtedly one of the most thought provoking of the scientist’s adventures.

ছোটগল্প ৬৪ – প্রফেসর শঙ্কু – ডঃ শেরিং এর স্মরণশক্তি / Short Story 64 – Professor Shanku – Dr. Sherring er Smaranshakti (The Remembrance of Dr. Sherring)

Satyajit Ray-Professor Shanku-Dr Shering er Smaranshakti 1পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Dr Shering er Smaranshakti

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – ডঃ শেরিং এর স্মরণশক্তি – সত্যজিৎ রায়

প্রফেসর শঙ্কুর এই গল্পটির পটভূমি সুইটজারল্যান্ড। শঙ্কুর সেখানে যাওয়ার কারণ দুটো – এক, ইউরোপের বৈজ্ঞানিকমহলের সামনে তার সদ্য আবিস্কৃত স্মরণশক্তি বাড়ানোর যন্ত্র রিমেমব্রেনের কার্যকরিতার প্রমাণ দেওয়া, আর দুই, রহস্যজনক সড়ক দুর্ঘটনায় স্মৃতিশক্তি হারানো এক বৈজ্ঞানিকের হারানো স্মৃতি ফিরিয়ে আনা। স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলার আগে ডঃ শেরিং একটি গোপন বিষয় নিয়ে গবেষণা করছিলেন, যা শেষ হওয়ার আগেই তিনি আর সেই গবেষণায় তার সহকর্মী ডঃ লুবিন পাহাড়ের গায়ে দুর্ঘটনাটির শিকার হন। দুর্ঘটনায় শেরিং বেচে গেলেও লুবিন মারা যান, আর গবেষণার কাগজপত্রসমেত তাদের গাড়িচালক নিশ্চিহ্ন হয়ে যান। শঙ্কুর যন্ত্র শেরিং এর উপর কাজ করলেও দুর্ঘটনার কারণ আর কাগজগুলোর হদিস সম্বন্ধে তিনি কিছুই জানাতে পারেন না। শঙ্কুর সন্দেহ হয়, যে বৈজ্ঞানিকদের এই পরিণতির কারণ নিছক দুর্ঘটনা নয়, যদিও আসল ঘটনার অনেকটুকুই তখনো ঘটতে বাকি।

Professor Shanku’s Stories – The Remembrance of Dr. Shering – Satyajit Ray

In this story, Shanku finds himself in Switzerland in an attempt to recover the memories of a certain Dr. Sherring, who had been working on a top secret project before losing his memory in a traffic accident. While Dr. Sherring had survived, his co-worker on the project, Dr. Lubin, did not. More perplexingly, however, no body of the driver of their car is found, as are the documents of their research. While Shanku’s latest invention, the remembrain, succeeds in restoring Dr. Sherring’s memory, he fails to shed any light on the accident. Salvaging the documents seems to be an impossibility, until Shanku realizes that the accident , after all, might not have been one.

Satyajit Ray-Professor Shanku-Dr Shering er Smaranshakti 2

ছোটগল্প ৫১ – প্রফেসর শঙ্কু – রোবু / Short Story 51 – Professor Shanku – Robu

Satyajit Ray-Professor Shanku-Robuপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link:  Satyajit Ray-Professor Shanku-Robu

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – রোবু – সত্যজিৎ রায়

বেশ কিছু দিন হয়ে গেল এই সাইটে প্রফেসর শঙ্কুর কোন গল্প তুলে দেই নি, তাই আজকের লেখাটি। গল্পটির শুরু হয় যখন দেড় বছর ধরে কাজ করে প্রফেসর শঙ্কু রোবু নামের একটি যন্ত্রমানব (রোবট) তৈরী করেন। তার কিছুদিন পরেই জার্মানি থেকে শঙ্কুর জন্যে একটি চিঠি আসে, যা পড়ে জার্মানির এক বিজ্ঞানীর কথা জানতে পারেন, যার বিশ্বাস যন্ত্রকে দিয়ে কখনোই মানুষের কাজ করানো সম্ভব নয়। শঙ্কু স্থির করেন জার্মানি যাবেন, যদিও তার ধারণা ছিলনা যে সেখানে তার এবং রোবুর জন্য কিরকম প্রতিদ্বন্দিতা অপেক্ষা করছে।

Professor Shanku’s Stories – Robu – Satyajit Ray

It has been a while since I last uploaded a Professor Shanku adventure, hence this upload. Robu starts with the professor’s creation of a robot of the same name, and with the arrival of a letter of invitation from a scientist in Heidelberg, Germany. Shanku decides to accept the invitation, little knowing the competition he and his robot were going to face.

ছোটগল্প ৪৩ – প্রফেসর শঙ্কু – কর্ভাস / Short Story 43 – Professor Shanku – Corvus

Satyajit Ray-Professor Shanku-Corvus

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Corvus

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – কর্ভাস – সত্যজিৎ রায়

প্রফেসর শঙ্কুর আরেকটি গল্প। পাখিদের বুদ্ধিবৃত্তি নিয়ে শঙ্কুর অনেক দিন থেকেই কৌতুহল থাকায় তিনি স্থির করেন যে কৃত্তিমভাবে একটি পাখির বুদ্ধি বাড়িয়ে দেখবেন কি হয়। পরীক্ষার জন্যে পাখিও মেলে – একটি পাতিকাক, আর তা সফলও হয়। তবে মজার ঘটনাগুলো ঘটতে শুরু করে তার কয়দিন পরে।

Professor Shanku’s Stories – Corvus – Satyajit Ray

Another of Professor Shanku’s stories. In Corvus, Shanku realises his longtime dream of artificially augmenting a bird’s intelligence. The subject of the experiment, a common crow, develops a high intelligence as a result, with amusing consequences.

ছোটগল্প ৪১ – প্রফেসর শঙ্কু – নকুড়বাবু ও এল ডোরাডো / Short Story 41 – Professor Shanku – Nakurbabu O El Dorado (Nakurbabu and El Dorado)

Shanku-Nokurbabu O El Doradoপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Nakurbabu O El Dorado

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – নকুড়বাবু ও এল ডোরাডো – সত্যজিৎ রায়

প্রফেসর শঙ্কুর গল্পগুলোর চরিত্রদের মধ্যে যদি নকুড়চন্দ্র বিশ্বাস সাথে পাঠকদের পরিচয় না হয়, তাহলে এই সাইটে প্রফেসর শঙ্কুর গল্পগুলোর তালিকাটি অসম্পূর্ণই থেকে যাবে। নকুড়বাবুর সম্পর্কে বেশি কিছু বললে গল্পের মজা নষ্ট হয়ে যাবে, তবে এটুকু বলব যে গল্পটির শুরু হয় তার অতীন্দ্রীয় আর সম্মোহনী ক্ষমতাকে ঘিরে, আর শেষ হয় ব্রাজিলের অ্যামাজন জঙ্গলের মাঝে এক কিংবদন্তির শহরে। টেলিপ্যাথি, সম্মোহন, এল ডোরাডো, অ্যানাকন্ডা, সোনার শহর – আরো অনেক কিছুই এক সূত্রে গাঁথা সত্যজিৎ রায়ের এই গল্পে।

Professor Shanku’s Stories – Nakurbabu O El Dorado (Nakurbabu and El Dorado) – Satyajit Ray

Of the characters in Professor Shanku’s adventures, Nakurchandra Biswas deserves a special mention. Of course, that needs to be done in its place, that is, in Nakurbabu O El Dorado. But without giving too much away, let me tell you that the story starts with Nakurbabu revealing his extrasensory and hypnotic powers, and ends in a fabled city in the Brazilian Amazon. Telepathy, hypnotism, El Dorado, Anaconda, City of Gold, and a lot more, threaded into a absorbing narrative by Satyajit Ray.

Shanku-Nokurbabu O El Dorado 2

 

ছোটগল্প ৩৭ – প্রফেসর শঙ্কু – হিপনোজেন / Short Story 37 – Professor Shanku – Hypnogen

Shanku-Hypnogen

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Hypnogen

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – হিপনোজেন – সত্যজিৎ রায়

এবার সত্যজিৎ রায়ের লেখা একটি বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী – প্রফেসর শঙ্কু নানা অভিযানের ফাঁকে যখন তাঁর গিরিডির বাড়িতে, তখন নরওয়ের থেকে তার কাছে একটি রহস্যজনক টেলিগ্রাম আসে, যাতে জনৈক আলেকজান্ডার ক্রাগ শঙ্কুকে তার নিজের বাড়িতে আমন্ত্রণ জানান। কৌতুহলী শঙ্কু খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন যে এককালে আলেকজান্ডার ক্রাগ নামের এক হীরের খনির মালিক থাকলেও তিনি ১৯১৩ সালেই মারা যান। কিন্তু খটকা লাগলেও শঙ্কু যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন, কারণ টেলিগ্রামে যাতায়াতের সমস্ত খরচ বহন করার প্রতিশ্রুতি ছাড়া এও লেখা ছিল, যে ক্রাগের বাসস্থানেই শঙ্কুর সাথে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ বৈজ্ঞানিকের দেখা হতে চলেছে।

Professor Shanku’s Stories – Hypnogen – Satyajit Ray

This time, another of Professor Shaku’s adventures – while in Giridi between his expeditions, the Professor receives a mysterious telegram bearing an invitation form a certain Norwegian named Alexandar Krag. Curious, Professor Shanku decides to look him up, and finds in an old who’s who that the last widely known Alexandar Krag was a diamond mine owner who had died in 1913. However, Shanku still decides to go, as besides the guaranteed reimbursement, Mr. Krag also mentions that he would introduce the world’s greatest scientist to the Professor at his residence.

ছোটগল্প ২৭ – প্রফেসর শঙ্কু – একশৃঙ্গ অভিযান / Short Story 27 – Professor Shanku – Eksringa Abhijan (Quest for the Unicorn)

Shanku-Eksringa Abhijanপিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Professor Shanku-Eksringa Abhijan

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – একশৃঙ্গ অভিযান – সত্যজিৎ রায়

শঙ্কুকে নিয়ে লেখা সত্যজিৎ রায়ের গল্পগুলোতে বিজ্ঞান আর কল্পনার অসাধারণ সংমিশ্রণের কথা এর আগেই লিখেছি। তবে কল্পনার কথাই যদি বিশেষ করে বলতে হয়, তাহলে শঙ্কুর ‘একশৃঙ্গ অভিযান’ এর চেয়ে মোক্ষম উদাহারণ সম্ভবত আর হয় না। ‘একশৃঙ্গ অভিযানে’ শঙ্কুর এক বন্ধু তিব্বত ঘুরে আসা এক সদ্যমৃত পর্যটকের ডায়েরীতে অদ্ভুত একটি তথ্যে খুঁজে পান, যা প্রফেসর শঙ্কু ও তার সহযাত্রীদের নিয়ে যায় তিব্বতের দুর্গম পর্বতমালায়। বিপদসঙ্কুল সেই যাত্রার উদ্দেশ্য – বাস্তবতা আর কল্পনাকে একাকার করে দেওয়া এক জগতের সন্ধান করা… আর অনুপ্রেরণা – সেই ডায়েরীতে লেখা একটি লাইন, “আই স আ হার্ড অফ ইউনিকর্নস টুডে (আজ আমি একপাল ইউনিকর্ন দেখেছি)”।

যারা পড়ছেন, তাদের জন্য কিছু সুড়সুড়ি দেওয়া শব্দ – উড়ন্ত লামা, ঐরাবত, তিব্বতি দস্যু, বাসিলিস্ক, ডুং লুং ডো।

Professor Shanku’s Stories – Eksringa Abhijan (Quest for the Unicorn) – Satyajit Ray

Another of Professor Shanku’s adventures. In Eksringa Abhijan (Quest for the Unicorn), Shanku and his friends embark on a treacherous journey into the mountains of Tibet in search of a world where the physical and the mythical are one. Their motivation – a line in the diary of a mountaineer whose path they would be tracing: “I saw a herd of unicorns today”.

A few teasers – The Flying Lama, Airavata, Basilisk, Bandits, Dung Lung Do. Enjoy!

Shanku-Eksringa Abhijan 2

ছোটগল্প ২৫ – প্রফেসর শঙ্কু – শঙ্কুর সুবর্ণ সু্যোগ / Short Story 25 – Professor Shanku – Shankur Subarna Shujog (Shanku’s Golden Chance)

Shankur Subarna Sujog

পিডিএফ লিঙ্ক / PDF Link: Satyajit Ray-Shankur Subarna Shujog

প্রফেসর শঙ্কুর গল্প – শঙ্কুর সুবর্ণ সু্যোগ – সত্যজিৎ রায়

প্রফেসর শঙ্কুর গল্পগুলো পড়লে সেগুলোর ভিন্নতা দেখে অবাক হয়ে যেতে হয়। প্রাচীন সভ্যতার বর্তমানতা থেকে শুরু করে মানুষের ভবিষ্যৎ রূপ, কিংবা সম্মোহন (হিপনোটিজম) অথবা যন্ত্রের ক্ষুদ্রকরণ (মিনিয়েচারাইজেশন) – শঙ্কুর গল্পগুলোর মধ্যে দিয়ে সত্যজিৎ ইতিহাস আর বিজ্ঞানের অনেক তথ্যের সাথে আমাদের পরিচিত করেছেন অসাধারণ সাবলীলতায়। ‘শঙ্কুর সুবর্ণ সু্যোগ’ সেদিক দিয়ে অনন্য একটি গল্প, আর বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী হিসেবে তো বটেই – স্পেন, অ্যালকেমি, জবীর ইবন হায়ান, প্ল্যানচেট – একই ছোটগল্পে নিপুণভাবে গাঁথা এত বৈচিত্র অন্য কোন বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে আছে কি?

Professor Shanku’s Stories – Shankur Subarna Shujog (Shanku’s Golden Chance) – Satyajit Ray

One of the many remarkable things about Professor Shanku’s stories is the variety of topics that they present. From ancient civilizations to the future evolution of man, or from hypnotism to miniaturization of electronics – Satyajit Ray introduces a wonderful medley of historical and scientific topics to the reader. Shankur Subarna Shujog (Shanku’s Golden Chance) is certainly a stand-out in that respect (and as a science fiction, of course!) – Spain, Alchemy, Jabir Ibn Hayyan, Planchette… need I say more?